বুধবার, ২৩ মে ২০১৮

শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০১৮

বউভাতে অতিথিদের গাছ উপহার নবদম্পতির

এবিসিরিপোর্ট ডেস্ক

‘একটি গাছ একটি প্রাণ’ এর সঙ্গে সবাই পরিচিত৷ এটাই আপামোর জনসাধারণের কাছে পৌঁছে দিতে চেয়েছিল ওরা দুজন৷ সেই ভাবনা থেকেই বউভাতের আয়োজন৷

নিজেদের বিয়ে ও বউভাত স্মরণীয় করে রাখতে ও অতি অবশ্যই পরিবেশের উন্নতি ঘটাতে বিশ্ব উষ্ণায়নের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের প্রচেষ্টা করেন অনুশ্রী ও বিশ্বজিৎ৷ তাই বিয়ে হোক বা বউভাত, ভোজন পর্বের শেষ পাতে হাজির একটি করে গাছ৷ যারা অক্সিজেন যোগাবে আগামী অনেক প্রজন্মের৷

সম্প্রতি শান্তিনিকেতনের অনুশ্রী ও মছলন্দপুরের বিশ্বজিৎ বউভাতে আগত অতিথিদের থেকে উপহার না নিয়ে তাদের উপহার হিসাবে দিলেন একটি করে গাছ৷ ওই দম্পতির স্বপ্ন, কোনোদিন এই গাছের অক্সিজেনেই কারোর প্রাণ বাঁচাবে৷ অভিনব এই আয়োজন কোথাও যেন হয়ে দাঁড়াল বিশ্ব উষ্ণায়নের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের নিদর্শন৷ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত ৬৫০ অতিথির প্রত্যেকেই বাড়ি নিয়ে গেছেন একটি করে গাছ৷

পেশায় সঙ্গীত শিল্পী বিশ্বজিৎ জানান, ভাবনাটা দুজনের৷ চলতি বছরের ২৬ জানুয়ারি বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন তারা। তার মাস চারেক আগে থেকেই চলছিল এমন অভিনব কিছু করবার চিন্তা-ভাবনা৷

বিশ্বজিৎ বলেন, ‘আমি সঙ্গীতের পাশাপাশি বেশ কিছু সামাজিক কাজের সঙ্গে যুক্ত৷ সেখান থেকেই এই ভাবনার উত্থাপন৷ অনুশ্রীরও সবসময় এমন কিছু করার ইচ্ছা ছিল। সেই ভাবনা থেকেই এই কাজ৷ বিয়ের আগেই স্থানীয় নার্সারিতে ৬৫০ গাছের অর্ডার দেয়া হয়৷ ডিজাইনার টব আনা হয় দত্তপুকুর থেকে৷ এরপরে টবের গায়ে লিখে দেয়া হয় রবি ঠাকুরের কবিতার লাইন৷’

বিশ্বজিৎ জানিয়েছেন, ‘ওই কবিতার বিষয়ে আমাদের দিদি অদিতি খুব সাহায্য করেছেন৷ উনি ছাড়া এটা সম্ভব হত না৷ পাশাপাশি দুই বাড়ির সমর্থনও ছিল। ২৯ জানুয়ারি বউভাতের দিন খাওয়া দাওয়ার পরে প্রত্যেক অতিথির হাতে তুলে দেয়া হয় টবসমেত গাছ৷ বিয়েতে উপহার না নিয়ে তার বদলে গাছ উপহার দেয়ার বিষয়টা অনেকেই খারাপ ভাবতেও পারেন৷

অনুশ্রী বলেন, ‘প্রথমে গিফট ফিরিয়ে দেয়ায় অনেকেই একটু অবাক হয়েছিলেন৷ কিন্তু পরের সারপ্রাইজটা প্রত্যেকে দারুণভাবে অ্যাকসেপ্ট করেছেন৷’ কলকাতা ২৪x৭