বৃহস্পতিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭

গণমাধ্যম

সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যা : ২৩ আগস্ট তদন্ত প্রতিবেদন

সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যা : ২৩ আগস্ট তদন্ত প্রতিবেদন

সাংবাদিক দম্পতি সাগর সারওয়ার ও মেহেরুন রুনি হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আগামী ২৩ আগস্ট দিন ধার্য করেছেন আদালত।মঙ্গলবার মামলাটির তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য দিন ধার্য ছিল। কিন্তু এদিন মামলার তদন্ত সংস্থা র‌্যাব প্রতিবেদন দাখিল করতে পারেনি। এজন্য ঢাকা মহানগর হাকিম খুরশীদ আলম প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ পিছিয়েছেন।

মামলায় রুনির কথিত বন্ধু তানভীর রহমানসহ মোট আসামি আটজন।

সাংবাদিক দম্পতি সাগর সারওয়ার ও মেহেরুন রুনি হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আগামী ২৩ আগস্ট দিন ধার্য করেছেন আদালত।

আজ মঙ্গলবার মামলাটির তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য দিন ধার্য ছিল। কিন্তু এদিন মামলার তদন্ত সংস্থা র‌্যাব প্রতিবেদন দাখিল করতে পারেনি। এজন্য ঢাকা মহানগর হাকিম খুরশীদ আলম প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ পিছিয়েছেন।

মামলায় রুনির কথিত বন্ধু তানভীর রহমানসহ মোট আসামি আটজন।

দেশ ও জাতির উন্নয়নে ফটোসাংবাদিকদের ভুমিকা অপরিসীম: ডিলী আচারয়া

দেশ ও জাতির উন্নয়নে ফটোসাংবাদিকদের ভুমিকা অপরিসীম: ডিলী আচারয়া

ডিলী আচারয়া বলেন, দেশ ও জাতির উন্নয়নে ফটোসাংবাদিকদের ভুমিকা অপরিসীম। ফটোসাংবাদিকদের তোলা ছবির মাধ্যমেই দেশ ও সমাজের সুখ-দুঃখের কথা আমরা সকলেই জানতে পারি। ফটোসাংবাদিকরা এই আধুনিক যুগে প্রতিনিয়ত নিজেদের অক্লান্ত পরিশ্রমের মাধ্যমে সুষ্ঠ সংবাদ প্রচার ও প্রসার করছে। আজ শনিবার দুপুর ১২ টায় পল্টনস্থ বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন মিলনায়তনে নেপাল মৈত্রি ফটো প্রদর্শনী ও রূপসী বাংলা ফটো প্রতিযোগীতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে নেপালী রাজদৃতাবাস-এর সেকেন্ড সেক্রেটারী ডিলী আচারয়া এসব কথা বলেন। এ সময় তিনি বাংলাদেশী ফটোসাংবাদিকদের নেপালের সৌন্দর্য্য উপভোগ করার জন্য ঐদেশে যাওয়ার আমন্ত্রন জানান।

সাংবাদিকতার ঝুঁকি মোকাবিলা করেই এগিয়ে যেতে হবে

সাংবাদিকতার ঝুঁকি মোকাবিলা করেই এগিয়ে যেতে হবে

সাংবাদিকতার ঝুঁকি মোকাবিলা করেই এগিয়ে যেতে হবে। গতকাল বুধবার বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস উপলক্ষে জাতীয় প্রেসক্লাব আয়োজিত এক আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। ম্যানেজমেন্ট এন্ড রিসোর্সেস ডেভেলপমেন্ট ইনিশিয়েটিভ (এমআরডিআই) ও ফোয়ো মিডিয়া ইনস্টিটিউট, সুইডেনের-এর সহযোগিতায় ‘বাংলাদেশে মুক্ত গণমাধ্যমের বর্তমান চিত্র’ শীর্ষক এই সভার আয়োজন করা হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি মুহম্মদ শফিকুর রহমান। সেমিনারে দেশের গণমাধ্যমের সার্বিক চিত্র নিয়ে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল।

আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সভাপতি লাভলু, শহীদুল সাধারণ সম্পাদক

আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সভাপতি লাভলু, শহীদুল সাধারণ সম্পাদক

যুক্তরাষ্ট্রে কর্মরত বাংলাদেশি আমেরিকান সাংবাদিকদের সংগঠন আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের নির্বাচনে লাভলু-শহীদুল প্যানেল বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছে। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ ৯টি পদে কোন প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় নির্বাচন কমিশন মঙ্গলবার রাতে লাভলু-শহীদুল প্যানেলকে নির্বাচিত ঘোষণা করেন। গত ২৬ ফেব্রুয়ারি ছিল মনোনয়নপত্র জমা এবং ২৮ ফেব্রুয়ারি ছিল মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। তিন সদস্যের নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী মনোনয়ন জমাদানকারীদের প্রার্থিতা প্রত্যাহার ও বাছাই করার পর প্রতিটি পদের জন্য একজন করে প্রার্থী পাওয়া যায়। প্রত্যাহার ও বাছাই করার পর এই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা না থাকায় মনোনয়ন জমা দেওয়া প্রার্থীদের প্রাথমিকভাবে নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়।

অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালার খসড়ায় আর পরিবর্তন নয়

অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালার খসড়ায় আর পরিবর্তন নয়

জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা ২০১৫-এর খসড়ায় আর কোন পরিবর্তন আনার পক্ষে নয় তথ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। কিছু অনলাইন গণমাধ্যমে উস্কানিমূলক তথ্য প্রচার করে সহিংসতা ছড়ানো হয় এবং রাষ্ট্রদ্রোহের মতো অপরাধও করা হয় উল্লেখ করে তা নিয়ন্ত্রণে নীতিমালা দ্রুত কার্যকর করার ওপর জোর দিয়েছে সংসদীয় কমিটি। বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে সংসদীয় কমিটির বৈঠকে এ নিয়ে আলোচনা হয়। কমিটির সভাপতি এ কে এম রহমতুল্লাহ্ সভাপতিত্বে বৈঠকে অংশ নেন কমিটির সদস্য তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, সুকুমার রঞ্জন ঘোষ, সিমিন হোসেন (রিমি) এবং সাইমুম সরওয়ার কমল। বৈঠকে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মরতুজা আহমদসহ মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট উর্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সংশ্লিষ্টরা জানান, বৈঠকে খসড়া নীতিমালাটি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। খসড়ায় আর কোন পরিবর্তন চায় না সংসদীয় কমিটি। গত বছরের ২১ জুলাই খসড়া নীতিমালাটি তথ্য মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে আপলোড করা হয়। ১২ আগস্টের মধ্যে সর্বসাধারণকে মতামত দিতে বলা হয়। দ্বিতীয় দফায় ৩১ আগস্ট এবং তৃতীয় দফায় ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মতামত দেয়ার সময় বাড়ানো হয়। সাধারণ মানুষ ছাড়াও বিভিন্ন মন্ত্রণালয় থেকেও মতামত দেয়া হয়। নীতিমালা প্রসঙ্গে কমিটির সভাপতি এ কে এম রহমতুল্লাহ বলেন, অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালাটির খসড়ার ওপর একাধিকবার আলোচনা হয়েছে। বর্তমানে তা চূড়ান্ত পর্যায়ে আছে। নীতিমালার কোন অংশের বিষয়েই কমিটির কোন দ্বিমত নেই। তাই কমিটি চায় না এতে আর কোন পরিবর্তন আসুক। বরং নীতিমালাটি দ্রুত কার্যকর করার ওপর জোর দিয়েছে কমিটি। চূড়ান্ত খসড়া নীতিমালা অনুসারে, অনলাইন গণমাধ্যম বলতে বাংলা, ইংরেজী বা অন কোন ভাষায় প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে ইন্টারনেট ব্যবহারের মাধ্যমে স্থির ও চলমান চিত্র, ধ্বনি ও লেখা বা মাল্টিমিডিয়ায় অন্য কোন রূপে উপস্থাপিত তথ্য-উপাত্ত প্রকাশ বা সম্প্রচারকারী ব্যক্তি, সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানকে বোঝাবে। অনলাইন গণমাধ্যমের জন্য কোন ধরনের জামানত রাখতে হবে না। এর আগে বেসরকারী টেলিভিশন ও বেতারের জন্য প্রণীত জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালা বাস্তবায়নের জন্য যে জাতীয় সম্প্রচার কমিশন গঠন করা হবে, সেই কমিশনকেই জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা দেয়া হতে পারে। সংশ্লিষ্টদের মতে, অনলাইন গণমাধ্যমের ওপর সরকারের কোন নিয়ন্ত্রণ নেই। দেশে কত সংখ্যা অনলাইন গণমাধ্যম আছে তার সঠিক পরিসংখ্যানও সরকারের কাছে নেই। নীতিমালা না থাকায় বিভিন্ন সময়ে কিছু অনলাইন গণমাধ্যমের বিষয়ে সহিংসতা ছড়ানোর অভিযোগ উঠলেও সরকার কোন ব্যবস্থা নিতে পারে না। খসড়া নীতিমালায় বলা হয়েছে, সশস্ত্র বাহিনীসহ দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়োজিত অন্য কোন বাহিনীর প্রতি কটাক্ষ, বিদ্রুপ বা অবমাননা করা যাবে না অনলাইন গণমাধ্যমে। অপরাধ নিবারণ ও নির্ণয়ে অথবা অপরাধীদের দ- বিধানে নিয়োজিত সরকারী কর্মকর্তাদের হাস্যস্পদ করে ও ভাবমূর্তি নষ্ট করে এমন তথ্য-উপাত্ত প্রচার, প্রকাশ ও সম্প্রচার করা যাবে না। রাষ্ট্রদ্রোহমূলক ও হিংসাত্মক ঘটনা প্রদর্শন করে এমন কোন তথ্যও প্রচার করা যাবে না। এদিকে সংসদ সচিবালয়ের গণসংযোগ বিভাগের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সংসদীয় কমিটির বৈঠকে বিগত বৈঠকে গৃহীত সিদ্বান্তগুলোর বাস্তবায়ন অগ্রগতি এবং তথ্য অধিদফতরের (পিআইডি) সার্বিক কার্যক্রম, সমস্যা ও ভবিষ্যত পরিকল্পনা বিষয়ে আলোচনা হয়। সভায় অনলাইন তথ্য গবেষণা ও অনলাইন তথ্য নীতিমালা বিষয়ে আলোচনা হয়। এছাড়াও বৈঠকে তথ্য অধিদফতরের সার্বিক কার্যক্রম পরিদর্শনের লক্ষ্যে সংসদীয় কমিটির তা পরিদর্শনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

নিবন্ধনহীন অনলাইন পত্রিকা বন্ধ করা হবে : সংসদীয় কমিটি

নিবন্ধনহীন অনলাইন পত্রিকা বন্ধ করা হবে : সংসদীয় কমিটি

সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী যেসব অনলাইন নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে নিবন্ধিত হবে না সেগুলো বন্ধ করে দেয়া হবে। জাতীয় সংসদ ভবনে বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত তথ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির ১৪তম বৈঠক শেষে কমিটির সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, দেশে ও দেশের বাইরে নাম সর্বস্ব অনেক অনলাইন পত্রিকা রয়েছে। এসব অনলাইন অশ্লীলসহ বিভিন্ন ধরনের উদ্ভট নিউজ প্রচার করে। তিনি আরো বলেন, প্রত্যেকের কিছু নীতিমালার মধ্যে থাকা উচিত। কিন্তু অনেকে সেগুলো প্রয়োজন মনে করছেন না। যখন যেভাবে পারছেন অনলাইন খুলে দিচ্ছেন। আর উদ্ভট ও অশ্লীল সংবাদ প্রচার করছেন। তাই অনিবন্ধিত অনলাইন বন্ধ করে দেয়ার সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি। বৈঠকে আগের গৃহীত সিদ্বান্তসমূহের বাস্তবায়নে অগ্রগতি এবং তথ্য অধিদফতরের (পিআইডি) সার্বিক কার্যক্রম, সমস্যা ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা হয়। বৈঠকে অনলাইন তথ্য গবেষণা ও অনলাইন তথ্য নীতিমালা বিষয়ক আলোচনা হয়। এছাড়াও তথ্য অধিদফতরের বিভিন্ন শাখার গুরুত্ব ও সার্বিক কার্যক্রমের সচিত্র প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয় এবং এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। তথ্য অধিদফতরের সার্বিক কার্যক্রম পরিদর্শনের জন্য সংসদীয় কমিটি কর্তৃক পরিদর্শনের সিদ্ধান্ত হয় বৈঠকে। কমিটির সভাপতি এ কে এম রহমতুল্লাহর সভাপতিত্বে বৈঠকে আরো উপস্থিত ছিলেন কমিটি সদস্য তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, সুকুমার রঞ্জন ঘোষ এবং সিমিন হোসেন (রিমি) । বৈঠকে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মরতুজা আহমদসহ মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।